সাহেদ গ্রেফতার ঃ হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হচ্ছে

অনলাইন, সংবাদ জমিন ডেস্ক ঃঃ

সাতক্ষিরায় গ্রেফতার রিজেন্ট হাসপাতাল প্রতারণার নায়ক বহুল আলোচিত মো. সাহেদকে হেলিকপ্টারের ঢাকায় আনা হচ্ছে। ইতিমধ্যে তাকে ঢাকায় নিয়ে আসতে র‌্যাবের একটি দল ঢাকা থেকে সাতক্ষিরায় গেছেন। যেকোন সময় তাকে ঢাকায় নিয়ে আসা হবে। আজ বুধবার (১৫ জুলাই) ভোরে সাতক্ষীরার দেবহাটা সীমান্ত থেকে অবৈধ অস্ত্রসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। সাহেদ সাতক্ষিরার দেবহাটার শাকরা সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন বলে জানা গেছে। তার পালিয়ে যাওয়া সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। পালিয়ে যাওয়ার সময় সে বোরকা পড়া অবস্থায় ছিল বলে জানা গেছে। তার শরীরে কাদা মাটি মাখা ছিল। তাকে একটি নৌকায় লুকোনো অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব সদস্যরা। সাতক্ষিরা ষ্টেডিয়ামে তাকে হেলিকপ্টারে তোলার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সকাল ৮টায় তাকে নিয়ে হেলিকপ্টার ঢাকার উদ্দেশ্যে আকাশে ওড়ে। সাতক্ষিরা ষ্টেডিয়ামে এক সংক্ষিপ্ত ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের একজন কর্মকর্তা জানান, গ্রেফতারের সময় তার সঙ্গে একটি পিস্তল এবং তিন রাউন্ড গুলী ছিল। তাকে ভারতে পালিয়ে যেতে সাহায্য করছিল একজন দালাল। সে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গেছে। তাকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব। এর আগে জানা যায়, সাতক্ষীরা সীমান্ত থেকে অস্ত্রসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। দেশে করোনা মহামারি শুরুর পর করোনা টেষ্ট নিয়ে চরম প্রতারণা করে রিজেন্ট হাসপাতাল। গত ৬ জুলাই র‌্যাবের একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে পরীক্ষা ছাড়াই করোনার সনদ দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা ও অর্থ হাতিয়ে নেয়ার প্রমান পায়। অভিয়ানে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত অন্তত ছয় হাজার ভুয়া করোনা পরীক্ষার সনদ দেয়ার প্রমান পায়। একদিন পর গত ৭ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশে র‌্যাব রিজেন্ট হাসপাতাল ও তার মূল কার্যালয় সিলগালা করে দেয়। রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে ওই দিনই উত্তরা পশ্চিম থানায় নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়। এরপর থেকে মো. সাহেদ পলাতক ছিলেন। তাকে গ্রেফতার করতে র‌্যাব-পুলিশ দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিয়ান চালায়। সাহেদের খোঁজে সোমবার মৌলভীবাজারে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হলেও সেখানে তাকে পাওয়া যায়নি। এরপরই তাকে আজ ভোরে সাতক্ষির থেকো গ্রেফতার করা হয়।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.