ভিপি নুরের বাবা চায়ের দোকান করে সংসার চালায়

সংবাদ জমিন ডেস্ক ঃঃ

সরকারি চাকরিতে কোটাব্যবস্থার সংস্কারের দা’বিতে দেশব্যাপী শিক্ষার্থীদের আ’ন্দোলনের অন্যতম নেতা হিসেবে নুর পরিচিতি পান। ক্যাম্পাস জীবনের শুরুতে তার তেমন কোনো পরিচিতি ছিল না। কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে সহসভাপতি (ভিপি) পদে জয়ী হয়েছেন তিনি।

জানা গেছে, পটুয়াখালীর গলাচিপার কৃষক মো. ইদ্রিস হাওলাদারে ছেলে নুরুল হক নুর। তিন ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে নুর দ্বিতীয়। এত বড় সংসারের ঘানি টানতে নুরের বাবা ইদ্রিস হাওলাদার কৃষি কাজের পাশাপাশি উপজে’লার চর বিশ্বাস ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের একটি বাজারে চায়ের দোকান দিয়েছেন। একবার  মেম্বারও নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। দোকান দিয়েই তিনি সংসার চালান। পটুয়াখালীর চর বিশ্বাস ইউনিয়নেই শৈশব কে’টেছে নুরের। সেখানের চর বিশ্বাস জনতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৭ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেন তিনি। এর পর ভর্তি হন গাজীপুরের কালিয়াকৈরের একটি স্কুলে। উত্তরা মডেল এন্ড কলেজ থেকে এসএসসি পাশের পর ইংরেজী সাহিত্য বিভাগে ভর্তি

ভিপি নুরুল হক নুরের স্ত্রী একজন শিক্ষক। তার স্ত্রীর নাম মারিয়া আক্তার। তিনি স্থানীয় মধ্য চর বিশ্বাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালে চরবিশ্বাস ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হাতেম মাস্টারের মেয়ে মারিয়া আক্তার লুনাকে বিয়ে করেন নুর। নুরের স্ত্রী লুনা গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন। পরে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরি হলে পটুয়াখালী চলে যান লুনা। খোঁ’জ নিয়ে জানা গেছে, নুর যখন ডাকসু ভিপি পদে নির্বাচন করেন, তখন লুনা অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন।

সন্তানের কথা জানতে চাইলে ভিপি নুরের স্ত্রী মারিয়া আক্তার লুনা গণমাধ্যমকে বলেন, আমাদের সন্তান হয়েছে কী হয়নি তা ব্যক্তিগত বিষয়। বিষয়টি জানাতে আমি আগ্রহী নই। এ বিষয় নিয়ে আমি সংবাদমাধ্যমে কথা বলতে চাই না।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.