ভিপি নূরকে আটক, অতঃপর মুচলেকায় মুক্তি

সংবাদ জমিন, অনলাইন ডেস্ক ঃঃ

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরকে আটক এবং পরে মুক্তি দেয়ার বিষয়ে বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে। সন্ধ্যায় শাহবাগ থেকে তাকে আটক করার তথ্য জানানো হয় পুলিশের তরফে। রাতে গোয়েন্দা পুলিশের পক্ষ থেকে তাকে ছেড়ে দেয়ার তথ্য দেয়া হয়। পরে তাকে পুলিশের গাড়িতে করে ঢাকা মেডিকেলে নেয়া হয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তিনি হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। তবে এই মুহুর্তে তিনি আটক বা পুলিশ হেফাজতে আছেন কিনা তা কেউ নিশ্চিত করেনি। কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতারা নুর মুক্ত হয়েছেন কিনা তা নিশ্চিত করতে পারেননি। সোমবার রাতে শাহবাগ থেকে নুরকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয় বলে জানান ঢাকা মহানগর পুলিশের ডিসি (গণমাধ্যম) ওয়ালিদ হোসেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, নুরসহ কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলার প্রতিবাদে রাতে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শাহবাগ মোড়ে গেলে পুলিশ মিছিলে বাধা দেয়। এসময় মিছিলকারীরা সামনে এগোতে চাইলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। সেখানে নুরুল হক নুরসহ আন্দোলনকারী সাত জনকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। আটকের বিষয়ে পুলিশের রমনা জোনের ডিসি সাজ্জাদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় থেকে নুরের নেতৃত্বে একটি মিছিল শাহবাগে এসে বিশৃঙ্খলা ও পুলিশের ওপর হামলা চেষ্টা করে। সেখান থেকে নুরসহ ৭ জনকে আটক করা হয়। তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, পুলিশের কাজে বাধা দেয়া ও যানবাহন ভাঙচুরের অভিযোগে তাদের আটক করা হয়েছে।
সোমবার রাজধানীর লালবাগ থানায় নুরসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। নুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগ আনা হয়।
অভিযোগ অস্বীকার করে নুরুল হক নুর দাবি করেন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই মামলায় তাকে জড়ানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.