চীন ক্রমেই আমাদের জন্য ভয়ংকর হুমকি হয়ে উঠছে : পম্পেও

অনলাইন ডেস্ক ঃঃ

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এক বক্তৃতায় তার ভাষায় চীনের ’নব্য স্বৈরতন্ত্রের’ বিরুদ্ধে ‘স্বাধীন জাতিগুলোকে’ জয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, চীন তার নিজের দেশে আরো কর্তৃত্বপরায়ণ, আর বাইরে স্বাধীনতার প্রতি আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে। বৃহস্পতিবার ক্যালিফোর্নিয়ায় ইয়োর্বা লিন্ডায় রিচার্ড নিক্সন লাইব্রেরিতে এক বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। খবর দ্য গার্ডিয়ানের। তিনি বলেন, ‘মুক্ত বিশ্ব যদি কমিউনিস্ট চীনকে বদলাতে না পারে, তবে চীন আমাদের বদলে দেবে।’ পম্পেও বলেন, ১৯৭০ সালে চীনের জন্য দুয়ার খুলে দিয়ে প্রেসিডেন্ট নিক্সন উদ্বিগ্ন থাকতেন। তার সেই উদ্বেগ আজ সত্যি প্রমাণিত হয়েছে। ‘প্রেসিডেন্ট নিক্সন একবার বলেছিলেন, চীনের কমিউনিস্ট পার্টির জন্য বিশ্বের দরজা খুলে দিয়ে তিনি কার্যত ফ্রাঙ্কেনস্টাইন দানব তৈরি করেছেন,’ বলেন পম্পেও। ‘আর আমরা আজ সেই পরিস্থিতিতেই দাঁড়িয়ে,’ যোগ করেন তিনি।

গত কয়েক মাস ধরে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এসব বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিং বলেন, পম্পেও যা করছেন তা পিঁপড়ের একটি আস্ত গাছ ঝাঁকানোর চেষ্টার মতো ব্যাপার [একটি চীনা প্রবাদ যার অর্থ হলো নিজের শক্তিকে বাড়িয়ে দেখা]। এগুলো করে কোনো লাভ নেই।এদিকে যুক্তরাষ্ট্র হিউস্টনে চীনের দূতাবাস বন্ধ করে দেওয়ার পর চীনের চেংডুতে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসও বন্ধ করে দিয়েছে চীন।বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রে অধ্যয়নরত চার গবেষকের বিরুদ্ধে চীনের সামরিক বাহিনীর সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে তথ্য গোপনের অভিযোগ আনা হয়। তিনজনকে আটক করা হয়েছে। আর একজন সান ফ্রান্সিসকোতে চীনের কনস্যুলেটে আশ্রয় নিয়েছেন বলে দাবি করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে।অভিযোগে দাবি করা হয়, ওই গবেষকেরা যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তিগত জ্ঞান হাতিয়ে নেওয়ার জন্য অনুপ্রবেশ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী এটর্নি জেনারেল জন ডেমার্স বলেন, আমাদের মুক্ত সমাজের সুযোগ নিয়ে আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর অপব্যবহার করার মতলব চীনের। অপরাধ প্রমাণিত হলে চীনের এই চার গবেষকের ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড ও আড়াই লাখ ডলার জরিমানা হতে পারে। এমন অভিযোগকে যুক্তরাষ্ট্রের নির্লজ্জ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা বলে সমালোচনা করেছে চীন। চীনের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র বরাবরই চীনা শিক্ষার্থীদের ওপর অহেতুক অনুমানের ভিত্তিতে নজরদারি, হয়রানি এমনকি কোনো কারণ ছাড়াই আটক করছে। চীনা নাগরিকদের সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় সবকিছুই চীন করবে বলে জানান তিনি। পম্পেও বলেন, স্নায়ুযুদ্ধ কালে যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর কাছ থেকে স্বার্থপরের মতো সুবিধা নিয়েছে (চীন)। এর আগের সরকারগুলো চীনের বিষয়ে বরাবরই অতিরিক্ত সুপ্রসন্ন ছিল আর যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠান চীন যা বলেছে তাই করেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। কিন্তু হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসন, দক্ষিণ চীন সাগর প্রশ্নে এবং রাষ্ট্রীয়ভবে অন্য দেশের মেধাসম্পদ হাতিয়ে নিতে রাষ্ট্রীয় মদদ দিয়ে চীন আন্তর্জাতিক অঙ্গীকার ভঙ্গ করেছে বলে অভিযোগ করেন পম্পেও। তিনি বলেন, ‘আগের সেই রীতিতে চললে হবে না তা যতই সুবিধাজনক হোক। চীনের সঙ্গে আমাদের মৌলিক রাজনৈতিক ও আদর্শগত পার্থক্য ভুলে গেলে চলবে না।’

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.