জনমত জরিপে ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে বাইডেন

সংবাদ জমিন অনলাইন ডেস্ক ঃঃ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়-পরাজয় সম্পর্কে সর্বশেষ জনমত জরিপের ফলাফলে ট্রাম্প প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেনের চেয়ে ১৫ পয়েন্টে পিছিয়ে পড়েছেন। সিএনএন। ১৬ জুলাই গণমাধ্যমের এক প্রতিবেদন জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে কুয়িনিপিয়াক বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত জনমত জরিপের ফলাফলে দেখা গেছে, ভোটারদের মধ্যে ৫২ শতাংশ বাইডেনকে সমর্থন জানিয়েছেন। ট্রাম্পের পক্ষে সমর্থন জানিয়েছেন মাত্র ৩৭ শতাংশ ভোটার। এ বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত ১৮ জুনের জরিপের ফলাফলে ট্রাম্পের অবস্থান এর চেয়ে ভালো ছিল। সেখানে ট্রাম্পের পক্ষে ৪১ শতাংশ এবং বাইডেনের পক্ষে ৪৯ শতাংশ ভোটার সমর্থন জানিয়েছিলেন। এক মাসেরও কম সময়ের ব্যবধানে দু’জনের মধ্যে পার্থক্য আট পয়েন্ট থেকে বেড়ে ১৫ পয়েন্টে পৌঁছে গেছে। এর আগের বেশ কয়েকটি জরিপের ফলাফলেও দেখা গেছে, আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বাইডেনের বিজয়ের সম্ভাবনা বেশি। করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় অদক্ষতা, কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিক ফ্লয়েড হত্যা এবং বেকারত্ব বেড়ে যাওয়ার কারণে ট্রাম্পের ভোট ক্রমেই তলানিতে গিয়ে ঠেকছে বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন। আগামী ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সে কারণে জনমত জরিপের ফলাফল নিয়ে ট্রাম্প শিবিরে উদ্বেগ ক্রমেই বাড়ছে। অপরদিকে জরিপে পিছিয়ে পড়ার দিনই তার ইলেকশন ক্যাম্পেইন ম্যানেজার ব্র্যাড পার্সকেলকে সরিয়ে দিয়েছেন। তার স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন ২০১৬ সালে ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণার ফিল্ড ডিরেক্টর বিল স্টিফেন। স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যায় ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে ট্রাম্প নিজেই এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সিএনএন আরও জানায়, জনমত জরিপে যেদিন ট্রাম্পকে দুই ডিজিট পেছনে ফেলতে সমর্থ হয়েছেন তার প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন সেদিনই ক্যাম্পেইন ম্যানেজার বদলের এ ঘোষণা এলো। গত জুনে ওকলাহোমায় নির্বাচনী প্রচারণার ব্র্যাড পার্সকেলের তৎপরতা নজর কাড়তে পারেনি। এ নিয়ে প্রেসিডেন্ট তার ওপর অসন্তুষ্ট ছিলেন। এখন ক্যাম্পেইন ম্যানেজারের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিলেও প্রচারণা শিবিরের শীর্ষ উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করে যাবেন তিনি। ট্রাম্প আবারও বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই ব্র্যাড পার্সকেল আমার সঙ্গে ছিলেন। এখন থেকে তিনি নির্বাচনি প্রচারণার শীর্ষ উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করবেন। প্রসঙ্গত সিএনএন জানিয়েছে, গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই ব্র্যাড পার্সকেলের ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনাকল্পনা চলছিল। একদিকে জরিপে ট্রাম্পের পিছিয়ে পড়া অন্যদিকে ওকলাহোমার সমাবেশে পারফরম্যান্স দেখাতে না পারায় এ অনশ্চিয়তা তৈরি হয়। ওকলাহোমার ওই সমাবেশ নিয়ে ট্রাম্প শিবিরের যথেষ্ট উদ্দীপনা ছিল। তাদের প্রত্যাশা ছিল ১৯ হাজার আসনের সমাবেশস্থলের বাইরেও প্রচুর লোকজন জড়ো হবে। ব্র্যাড পার্সকেল-এর ধারণা ছিল ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন জানাতে লাখ খানেক লোক এতে সমাবেত হবে। তবে শেষ পর্যন্ত সেখানে মাত্র ছয় হাজার মানুষ উপস্থিত হন। ওই ঘটনায় বেশ বিব্রত হন ট্রাম্প। এ ঘটনায় ট্রাম্প শিবিরের ভেতর থেকেই ব্র্যাড পার্সকেলের সমালোচনা শুরু হয়। সমালোচকদের দাবি, পার্সকেলই ওই ভেন্যু বাছাই করেছিলেন। অথচ সেখানকার সমাবেশে উপস্থিতি প্রত্যাশার ধারেকাছেও ছিল না।এক মাসেরও কম সময়ের ব্যবধানে দু’জনের মধ্যে পার্থক্য আট পয়েন্ট থেকে বেড়ে ১৫ পয়েন্টে পৌঁছে গেছে। আগের বেশক’টি জরিপের ফলাফলেও দেখা গেছে, আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বাইডেনের বিজয়ের সম্ভাবনা বেশি।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.