সংকট কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছে শেয়ার বাজার

সংবাদ জমিন, অনলাইন ডেস্ক ঃঃ

সংকট কাটিয়ে ঘুড়ে দাঁড়াচ্ছে দেশের শেয়ারবাজার। ৮ আগস্ট রোববার বৃহৎ শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স সূচকটি ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উত্থান হয়েছে। এদিন ডিএসইএক্স বেড়েছে ১৮০ পয়েন্ট যা সূচকটি চালু হওয়ার সাড়ে ৭ বছরের মধ্যে একদিনের ব্যবধানে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উত্থান। ডিএসই সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

ডিএসইতে ডিএসইএক্স সূচকটি ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি ৪০৫৬ পয়েন্ট নিয়ে যাত্রা শুরু করে। এরপরে বিগত সাড়ে ৭ বছরের মধ্যে সূচকটি রোববার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উত্থান হয়েছে। এর আগে চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারি ইতিহাসের সর্বোচ্চ অর্থাৎ ২৩২ পয়েন্ট উত্থান হয়েছিল। আর চলতি বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি তৃতীয় সর্বোচ্চ অর্থাৎ ১৬৯ পয়েন্ট উত্থান হয়েছিল। এরও আগে ২০১৫ সালের ১০ মে সূচকটি একদিনের ব্যবধানে চতুর্থ সর্বোচ্চ বা ১৫৫ পয়েন্ট বেড়েছিল। দীর্ঘদিন ধরে শেয়ারবাজার মন্দাবস্থায় ছিল। এতে বিনিয়োগকারীদের নাভিশ্বাস উঠে যায়। এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেয়ারবাজারের উন্নয়নে গত ১৬ জানুয়ারি উচ্চ পর্যায়ের নীতি-নির্ধারকদের সঙ্গে বৈঠক করেন এবং কয়েকটি নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রীর ওই বৈঠকের পর ১৯ জানুয়ারি সূচকটি ইতিহাসের সর্বোচ্চ বাড়ে। কিন্তু পরবর্তীতে শেয়ারবাজার আবার মন্দায় পতিত হয়। সর্বশেষ গত ১০ ফেব্রুয়ারি শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের জন্য প্রত্যেক ব্যাংককে ২০০ কোটি টাকা করে ফান্ড গঠনের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক এক সার্কুলার জারি করে। ওই প্রজ্ঞাপন জারির পর থেকে শেয়ারবাজারে বেশ কয়েকদিন উত্থান প্রবণতা বজায় থাকে। এরপর আবার পতনে ফিরে যায় শেয়ারবাজার। বাজারকে পতনের হাত থেকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) সূচকে সার্কিট ব্রেকার বেধে দেয়। এতে করে শেয়ারবাজারের পতন আটকে যায়। তবে দীর্ঘ দিন শেয়ারবাজারের গতিও থামকে ছিল। সবশেষ ঈদুল আজহার পর বাজারে গতি ফিরতে শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার বড় উত্থান হয়েছে শেয়ারবাজারে।

রোববার ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৪৭ পয়েন্ট, ডিএসই-৩০ সূচক ৬৬ পয়েন্ট এবং নতুন চালু হওয়া সিডিএসইটি সূচক ৩৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১০৫৮, ১৫৪০ ও ৮৯৮ পয়েন্টে। ডিএসইতে রোববার টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ১২৮ কোটি ৬৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট। যা আগের দিন থেকে ২৯২ কোটি ১১ লাখ টাকা বেশি। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৮৩৬ কোটি ৫৩ লাখ টাকার। ডিএসইতে রোববার ৩৫৫টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২৯৩টির বা ৮২ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ৪২টির বা ১২ শতাংশের এবং ২০টি বা ৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৪৮৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৮৮৯ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৭৪টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ২১০টির, কমেছে ২৯টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির দর। রোববার সিএসইতে ২৬ কোটি ৭৮ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

রোববার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্লক মার্কেটে ২৫টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব কোম্পানির সাড়ে ২৪ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর ৪৭ লাখ ৭২ হাজার ১৪৬টি শেয়ার ১৪৮ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ২৪ কোটি ৫৪ লাখ ৫৭ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ অর্থাৎ ৭ কোটি ৪১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ারের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫ কোটি ৪৯ লাখ ৯৪ হাজার টাকার এসকে ট্রিমসের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ সিঙ্গারের ৩ কোটি ১২ লাখ ৬৩ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এছাড়া উত্তরা ব্যাংকের ১৬ লাখ ৬১ হাজার টাকার, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের ৫ লাখ ২৪ হাজার টাকার, স্কয়ার ফার্মার ১৫ লাখ ২০ হাজার টাকার, সিলকো ফার্মার ৬৮ লাখ ৭২ হাজার টাকার, সী পার্লের ১ কোটি ৯০ লাখ ১৭ হাজার টাকার, প্রিমিয়ার ব্যাংকের ৩৪ লাখ ৩২ হাজার টাকার, ফনিক্স ফাইন্যান্সের ৭ লাখ ৯০ হাজার টাকার, ফনিক্স ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ১৫ লাখ ৪০ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের ২২ লাখ ২২ হাজার টাকার, ওরিয়ন ইনফিউশনের ৭ লাখ ৯৮ হাজার টাকার, অলিম্পিক এক্সেসরিজের ৩১ লাখ ৫০ হাজার টাকার, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সের ৬ লাখ ৫৮ হাজার টাকার, আইএফআইসি ব্যাংকের ২২ লাখ ৯ হাজার টাকার, জেনেক্সের ৭ লাখ ৪২ হাজার টাকার, ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সের ৩৩ লাখ ১৮ হাজার টাকার, সেন্ট্রাল ফার্মার ১ কোটি ২৫ লাখ টাকার, বেক্সিমকো ফার্মার ৮৬ লাখ টাকার, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলের ১৩ লাখ ৮০ হাজার টাকার, ব্র্যাক ব্যাংকের ২০ লাখ ৬৪ হাজার টাকার, বিকন ফার্মার ৮ লাখ ৬০ হাজার টাকার, ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকোর ৮৮ লাখ ৬২ হাজার টাকার এবং বারাকা পাওয়ারের ২৩ লাখ ৮০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.