নোয়াখালীতে ভাগিনার হাতে মামী ধর্ষণ : ভূমিষ্ঠ সন্তান নিয়ে তোলপাড়

সংবাদ জমিন, অনলাইন ডেস্ক ঃঃ
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে আপন মামিকে ধর্ষণের ঘটনায় পুলিশ ভাগ্নেকে আটক করে কারাগারে পাঠিয়েছে।
অভিযুক্ত নাজমুল আলম সোহান (১৮) সোনাইমুড়ীর কাইয়া গ্রামের পাটোয়ারী বাড়ির প্রবাসী মো. মোরশেদ আলমের ছেলে এবং চৌমুহনী মদন মোহন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্র। সোহান চৌমুহনী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের হাজীপুর এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করছে।
মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) দুপুর ১টায় আটক আসামিকে গ্রেফতার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে, মঙ্গলবার সকালে চৌমুহনী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের হাজীপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি ভাড়া বাসা থেকে সোহানকে আটক করে পুলিশ।
পুলিশ, ভুক্তভোগীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, নির্যাতিতা গৃহবধূ গত বছরের (৪ ডিসেম্বর) বেগমগঞ্জের চৌমুহনী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের হাজীপুর এলাকার আলাউদ্দিন ভিলার চতুর্থ তলায় বড় ননদের ভাড়া বাসায় বেড়াতে আসেন। ওই সময় অভিযুক্ত সোহান তাকে বাসায় একা পেয়ে ধর্ষণ করলে সে অন্তঃস্বত্ত্বা হয়ে পড়ে।
মঙ্গলবার সকালে ভুক্তভোগী গৃহবধূ এক মাসের এক কন্যা শিশু কোলে নিয়ে বেগমগঞ্জ থানায় এসে অভিযুক্ত ভাগ্নেকে ওই শিশুর পিতা দাবি করলে পুলিশ এ ঘটনায় সোহানকে আটক করে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে ওই গৃহবধূ অভিযুক্ত সোহানের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত সোহান নির্যাতিত গৃহবধূর আপন বড় ননদের ছেলে।
বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ভুক্তভোগী গৃহবধূর মামলার আলোকে আসামি কে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.

শিরোনাম