মতামত কলাম ঃঃ অবৈধ ইজিবাইক অবৈধ চালক দ্বারা নিয়ন্ত্রিত

নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি ঃঃ

গ্রামে গঞ্জে, ইউনিয়ন ও উপজেলাসহ সহজলভ্য ব্যাটারি চালিত যান ইজি বাইক। যাতায়াতের জন্য সহজেই এই বাহন পাওয়া যায়। মানুষের জীবন নিয়ে ছুটে চলে গন্তব্যে।কিন্তু ইজিবাইকের চালকের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন। ইজিবাইকের চালক রাষ্ট্রের দৃষ্টিতে একজন ড্রাইভার বা চালক। একজন সাধারন ড্রাইভার এর রাস্তায় নামার পূর্ব শর্ত হলো ড্রাইভিং লাইসেন্স। যা ইজিবাইক চালকদের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে বাধ্যতামূলক করা হয়নি বিধায় রাস্তায় পুরনো ইজিবাইকারের সকল প্রকার বৈধ কাগজপত্র, গাড়ির ফিটনেস পেপার, ইন্সুইরেন্স ও ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করা হয় না।
মানুষের জীবন বহনকারী অনভিজ্ঞ ইজিবাইকারের কোন কিছুই চেক করার কোন অপশন নেই প্রশাসনের কাছে! অনেক ইজিবাইকে লুকিং গ্লাস পর্যন্ত নেই যা থাকা বাধ্যতামূলক। ইজিবাইক চলাচল করে রাস্তার মাঝখান দিয়ে। যা যাত্রীসহ দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে অনেক বেশি এবং দূর্ঘটনা ঘটছে অহরহ। অনভিজ্ঞতায় রাস্তায় যত্রতত্র নির্বিকারে গাড়ি রেখে যানজট তৈরী করছে। অপর দিকে রাস্তার নিয়ম কানুন না জানার ফলে যেভাবে খুশি গাড়ি ড্রাইভ করে ও ইজিবাইক ব্যাগে নিতে গিয়ে সাধারণ যাত্রীদের ছোট খাট দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। মোটর সাইকেল আরোহী ইজিবাইক চালকদের কাছ থেকে মারাত্মক দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত।বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ডে ইজিবাইক চালকের ধাক্কায় আহত হতে দেখা যায় সাধারণ যাত্রীদের।
প্রশাসনসহ বিআরটিএ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি। অনাকাঙ্ক্ষিত দূর্ঘটনা ও মৃত্যু এড়াতে ইজিবাইক চালকদের যেন পেশাগত জীবনে দক্ষতায় রুপান্তরিত করে রাস্তায় নামার অনুমতি দেয়া হয়। এতে অনেক মহামূল্যবান জীবন যেমন রক্ষা পাবে। অপর দিকে পঙ্গুত্বের অভিশাপ নিয়ে বেচে থাকতে হবে না আহত কাউকে। আশা করছি, প্রশাসন বিষয়টি ভেবে দেখবেন। সূত্র-সাংবাদিক,ঢাকা,নবাবগঞ্জ

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.

শিরোনাম