ইসলাম ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য : নোবিপ্রবি’র দুই শিক্ষার্থীর শাস্তি দাবি

নোয়াখালী থেকে এসকে সুমন খান ঃঃ

নোবিপ্রবি প্রতিনিধি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের পরিবেশ বিজ্ঞান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী প্রতীক মজুমদার এবং একই শিক্ষাবর্ষের ফার্মেসি বিভাগের আরেক শিক্ষার্থী পাল দীপ্ত এর বিরুদ্ধে ইসলাম ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য এবং কটূক্তির অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা কঠোর শাস্তি দাবি করেন এ দুই শিক্ষার্থীর। এদিকে এ ঘটনায় ক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করে তাদের বহিষ্কারের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মানববন্ধনের আয়োজন করে। মানববন্ধন শেষে স্মারকলিপি দেয় তারা। শাহরিয়ারের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বায়েজিদুল ইসলাম মজুমদার, নাঈম এইচ সোহাগসহ অনেকে। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক বাংলায় ইসলাম ধর্ম নিয়ে এমন আপত্তিকর মন্তব্য সহ্য করা যায় না। কাদের প্রশ্রয়ে তারা এমন উগ্রপন্থী কার্যকলাপ চালাচ্ছে তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। বক্তারা আরো বলেন, কোন ধর্মেই অন্য ধর্মকে কটূক্তি করার বিধান নেই। সাম্প্রদায়িকতা ছড়াচ্ছে এরা।

মানববন্ধনে প্রতীক এবং দীপ্তর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তারা। এদিকে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের বিভিন্ন ফেসবুক পোস্টের স্ক্রিনশট ও কমেন্ট ভাইরাল হওয়ার পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। স্ক্রিনশটগুলোতে দেখা যায়, প্রতীক মুসলমানদের জান্নাতের ৭২ হুর নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। ওদের সাথে খেলার মতো জোর তার মাজায় নেই, সে অক্ষম বলে মন্তব্য করেছেন। পাশাপাশি পর্নস্টার নাতাশা, সানি লিওন ও মিয়া খলিফার সঙ্গে তুলনা করেছেন তাদের। হযরত আদম (আঃ) ছবি দেখতে চেয়েছেন।

আরেক স্ক্রিনশটে তিনি যৌতক, বাল্যবিবাহ, বউ পেটানো, নারী নির্যাতন, ইভটিজিং, সমকামিতা, ধর্ষণ, খুন, এসিড নিক্ষেপ, সন্ত্রাসী কার্যকলাপের জন্য আলেমদের দায়ী করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন পোস্ট ও কমেন্টের মাধ্যমে ইসলাম ও মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে নানা মন্তব্য করে আসছিলেন। অভিযুক্ত শিক্ষার্থী প্রতীক মজুমদার বলেন, ‘বিষয়গুলোর জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী।

‘ আরেক অভিযুক্ত শিক্ষার্থী পাল দীপ্ত বলেন, ‘গত কালকের পোস্টের জন্য আমি সকলের কাছে ক্ষমা প্রার্থী সকলেই আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। আমি আসলে কোন ধর্ম কে ছোট করে দেখার জন্য এই পোস্ট করিনি। আমি মজার ছলে এটা লিখে ফেলেছি, বিষয়টি এভাবে স্পর্শকাতর হবে কখনোই ভাবিনি। আবারও সকলের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।’ এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর বলেন, ‘বর্তমান বিশ্বে বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রতির এক অনন্য উদাহরণ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র গঠনে নিরলস কাজ করছেন। নোবিপ্রবিও কখনোই সাম্প্রদায়িকতাকে আশকারা দেয় নাই, দিচ্ছেনা এবং ভবিষ্যতেও দেবেনা। ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি বিষয়ক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ব্যাপারটা নোবিপ্রবি প্রশাসনের দৃষ্টি গোচর হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আমি মাননীয় উপাচার্য ও ট্রেজারার স্যারের সাথে কথা বলেছি। প্রশাসন শিগগরিই এব্যাপারটি যাচাই বাছাই করে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী করণীয় নির্ধারণ করবে বলে আমাকে জানানো হয়েছে। এ ব্যাপারে কাউকে উস্কানিমূলক বক্তব্য না দেয়ার জন্যে অনুরোধও করেন তিনি।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.

শিরোনাম