ছুরিকাঘাত করে সন্তানরা হত্যা করল বাবাকে

সংবাদ জমিন, অনলাইন ডেস্ক ঃঃ

রাজধানীর হাজারীবাগ বসিলায় ছুরিকাঘাতে লাল মিয়া (৪৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। স্বজনরা বলছেন, পারিবারিক কলহের জেরে স্ত্রী আরজুদা বেগমের পাহারায় লাল মিয়াকে হত্যা করেছে তার সন্তানরা। পুলিশ বলছে, নতুন ফ্লাট কিনে নতুন আরেকটি বিয়ে করতে চেয়েছিলেন লাল মিয়া। কয়েক জায়গায় পাত্রী খুঁজতেও বলেছিলেন। আর এতেই ক্ষুব্ধ হয়ে স্ত্রীর সহযোগিতায় তাকে গলায় ফাঁস ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করে সন্তানরা।

নিহতের ছোট ভাই মহর আলী জানান, হাজারীবাগ দক্ষিণ বসিলা ব্রিজের পাশে লাল মিয়ার তিনতলা বাড়ি। ২য় তলায় থাকতেন লাল মিয়া আর ৩য় তলায় থাকতেন তিন ছেলে ও ও সাবেক স্ত্রী আরজুদা বেগম। গত ৭/৮ মাস আগে পারিবারিক কলোহের কারণে স্ত্রী আরজুদা বেগমকে তালাক দেয় লাল মিয়া। ফলে ৩ ছেলে জহিরুল ইসলাম, সাজ্জাদুল ও মিলনসহ তাদের মা আরজুদা বেগমের সঙ্গে লাল মিয়ার বনিবনা ছিল না। প্রায় সময়ই ঝগড়াঝাঁটি চলত।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) দুপুরে তিনি (মহর আলী) বাড়ির পাশেই ছিলেন। লাল মিয়ার বাসা থেকে চিৎকারের শব্দ পেয়ে তিনি ওই বাসায় ঢুকে দেখেন এক ছেলে লাল মিয়ার গলায় গামছা পেচিয়ে ফাঁস দিয়ে রেখেছে আর আরেক ছেলে তার বুকে ছুরিকাঘাত করছে। এ সময় স্ত্রী দরজায় দাঁড়িয়ে পাহারা দিচ্ছিল। তখন তিনি লাল মিয়াকে তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করে প্রথমে শিকদার মেডিকেলে নিয়ে যান। সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

হাজারীবাগ থানার ওসি মোহা. সাজেদুর রহমান বলেন, বসিলা ব্রিজের পাশে নিজের ফ্লাটে স্ত্রী ও ৩ ছেলেকে নিয়ে থাকতেন লাল মিয়া। ওই বিল্ডিংয়ে তার অন্য ভাইদেরও ফ্লাট রয়েছে। সম্প্রতি তিনি তার বোনের কাছ থেকে একটি ফ্লাট কেনেন। ওই ফ্লাটে থাকার জন্য নতুন একটি বিয়ের করতে চেয়েছিলেন। এলাকার অনেককেই পাত্রী খুঁজতেও বলে ছিলেন। আর এতেই ক্ষুব্ধ হয়ে আরজুদা বেগমের সহযোগিতায় তাকে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ও ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে সন্তানরা। বিশেষ করে মেজো ছেলে সাজ্জাদ বেশি বেপরোয়া ছিল। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অভিযুক্তদের আটকের চেষ্টা চলছে বলেও জানান ওসি।

বেকু মেশিন দিয়ে যুবককে হত্যার অভিযোগ- রাজধানীর খিলক্ষেতের মাস্তুল এলাকায় জনি মিয়া (২৫) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার (১২ অক্টোবর) দিবাগত রাতে মাস্তুল এলাকার দুলাল এন্টারপ্রাইজের বালুর গদির সামনে থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। স্বজনদের অভিযোগ, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বেকু মেশিন দিয়ে হত্যা করা হয়েছে জনি মিয়াকে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.