ধামরাইয়ে গ্রাহকদের কোটি টাকা নিয়ে উধাও মইনুল ও তার ভাগ্নে হালিম

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি ঃঃ

ঢাকার ধামরাইয়ে ‘রোজ বহুমুখী সমবায় সমিতি’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক মইনুল ইসলাম ও তার ভাগ্নে আবদুল হালিম গ্রাহকদের অধিক লাভের প্রলোভন দেখিয়ে কয়েক কোটি টাকা আত্মসাৎ করে গা-ঢাকা দিয়েছেন। এ ঘটনায় গতকাল সকালে টাকা ফেরত পেতে দেপাশাই বংশী নদীর পাশে বিক্ষোভ করেছেন ভুক্তভোগী গ্রাহকরা ।

জানা গেছে, ধামরাইয়ের কালামপুর বাজারের মুদি দোকানদার ভাড়াটিয়া ইউনিয়নের মোড়ারচর গ্রামের মৃত সাহেব আলীর ছেলে মইনুল ইসলাম ২০০৯ সালের ২৩শে মার্চ ধামরাই উপজেলা সমবায় কার্যালয় থেকে ‘রোজ বহুমুখী সমবায় সমিতি’ নামে একটি সমিতির নিবন্ধন নেন। যার রেজিস্ট্রেশন নম্বর ৫৬৫। পরে তিনি তার ভাগ্নে ধামরাইয়ের দেপাশাই গ্রামের আবদুল হালিমকে সঙ্গে নিয়ে ধামরাইয়ের বিভিন্ন গ্রামের সাধারণ মানুষকে আমানতের ওপর অধিক লাভ দেয়ার প্রলোভন দিয়ে আমানত সংগ্রহ করতে শুরু করেন। প্রথমে কয়েক মাস গ্রাহকদের মাসে লাখে দেড় থেকে আড়াই হাজার টাকা করে লাভ দিতে থাকেন। এতে এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে মইনুল ইসলাম বিশ্বস্ততা অর্জন করেন। এক পর্যায় মইনুল ইসলাম গ্রাহকদের আমানতের টাকা দিয়ে ধামরাইয়ের কালামপুর বাজারের পাশে ভালুম মৌজায় ছয় শতাংশ জমি ক্রয় করে সেখানে তিনতলা আলিশান বাড়ি করেন। সেখান থেকে পুরোদমে শুরু করেন তার প্রতারণার ব্যবসা। বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে প্রায় কোটি টাকা নিয়ে মামা-ভাগ্নেেএখন উধাও। ভুক্তভোগীরা মইনুল ও ভাগ্নে হালিমকে আসামী করে থানায় ১০টি ডায়েরি করেছেন। টাকা চাইলেই হালিমের বাবা শুকর আলী মামলা দিয়ে ভুক্তভোগীদের হয়রানি করছেন। সেই সাথে ভুক্তভোগীদের বিরুদ্ধে আরও মামলা দেয়ার হুমকি দিচ্ছে। পুলিশ জানায়, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.