কিশোরগঞ্জে সিঁধ কেটে বাইরে এনে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি ঃঃ

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে পাঁচ বছর বয়সী এক শিশুকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। রোববার দিবাগত মধ্যরাতে উপজেলার কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নের সাঁতারপুর গ্রামে এই শিশু ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে। সোমবার সকালে শিশুটিকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদিকে ঘটনার পর রাতেই ধর্ষক মোহাম্মদ আলী (৪৫) গাঢাকা দিয়েছে। সে সাঁতারপুর গ্রামের মৃত আবু হোসেনের ছেলে। লম্পট প্রকৃতির মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে শিশু ও নারীদের যৌন নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রোববার রাতের খাবার শেষে শিশুটি নিজেদের ঘরে বাবা-মায়ের সাথে ঘুমিয়ে পড়ে। মধ্যরাতের দিকে লম্পট মোহাম্মদ আলী সিঁধ কেটে তাদের ঘরে ঢুকে ঘুমন্ত শিশুটিকে বাড়ির পাশের ফসলি মাঠে তুলে নিয়ে যায়।

সেখানে শিশুটিকে ধর্ষণ শেষে ফেলে রেখে যায়। শিশুটির আর্তচিৎকার শুনে গ্রামের এক মহিলা ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটিকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়। পরে সোমবার সকালে শিশুটিকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে শিশুটি সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। লোকজন দেখলেই ভয় আর আতঙ্কে কান্না করছে শিশুটি।

করিমগঞ্জ থানার ওসি মমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ধর্ষক মোহাম্মদ আলীকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছে। এছাড়া এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.