নাটোরে আদালতের রায় অমান্য করে বাদীপক্ষ হামলা করল আসামীর উপর

নাটোর প্রতিনিধি ঃঃ

নাটোরে আদালতের অদূরে জেলা প্রশাসকের বাস ভবনের সামনে আদালতের রায় অমান্য করে আসামির গাড়িতে হামলা করে মারপিট করেছে বাদী পক্ষের লোকজন। রবিবার বিকালে আদালতে মামলা নিষ্পত্তি শেষে বাড়ি ফেরার পথে আসামির সিএনজিতে হামলা করে ৩টি মোটরসাইকেলে থাকা বাদীর লোকজন আসামিকে বেধড়ক মারপিট করার সময় স্থানীয়রা এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। তবে আওয়াল নামে একজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয়রা। স্থানীয়রা জানায়, রবিবার বিকাল ৩টার দিকে জেলা প্রশাসকের বাস ভবনের সামনে স্পিড ব্রেকারের কাছে দাড়িয়ে থাকা ৩ টি মোটর সাইকেলের আরোহী একটি সিএনজি থেকে একজনকে নামিয়ে নিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকা ও তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় তার ও সিএনজির অন্য যাত্রীদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ও সংরক্ষিত এলাকার পুলিশ সদস্যরা এগিয়ে এলে অন্যরা মোটর সাইকেল নিয়ে পালিয়ে গেলেও একজনকে ধরে ফেলে স্থানীয়রা। পরে পুলিশ এসে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।জানা যায়, ৬ বছর আগে নওগা জেলার মহাদেবপুর উপজেলার গোসাইপুর গ্রামের ইসমাঈল হোসেন বিয়ে করেন নাটোরের বড়াইগ্রামের মাঝগ্ওা এলাকার জমসেদের মেয়ে নাজমা বেগমকে। তাদের ঘরে একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে।

বনিবনা না হওয়ায় এ বছরের জানুয়ারী মাসে ইসমাঈল নাজমাকে তালাক দিলে আদালতে মামলা করে নাজমা। সেই মামলায় রবিবার মোহরানা ও ঘোরপোস বাবদ ৭০ হাজার টাকা পরিশোধ করে মামলা নিষ্পতি করে। এই মামলা নিষ্পত্তি শেষে বাড়ি ফেরার পথে নাজমার পরিবারের লোকজন ইসমাঈলের উপর হামলা করে। নাজমা ও হামলাকারীদের দাবী নাজমা সংসার করতে চায়। সেজন্য তারা ইসমাঈল বোঝানোর জন্য বাড়ি নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে। এদিকে আহত ইসমাইলকে নাটোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর গৃহবধূ নাজমার ভাই আওয়ালকে আটক করে সদর থানা হেফাজতে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, আদালতে নিষ্পত্তিকৃত একটি ঘটনা। এ বিষয়ে দুই পক্ষ বসে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা করছে এখনো মামলা হয়নি।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.