শেরপুরের শ্রীবরদীতে রাস্তায় ধানের চারা রোপন করে প্রতিবাদ

শ্রীবরদী (শেরপুর) প্রতিনিধি ::

শ্রীবরদীতে বেহাল রাস্তায় ধানের চারা রোপন করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী। উপজেলার রানীশিমুল ইউনিয়ের ভায়াডাঙ্গা-কাকিলাকুড়া-বকশীগঞ্জ রোডের বাঘহাতা তালগাছ মোড় (নওয়াব মাস্টারের বাড়ি) থেকে বাঘহাতা, ঘোনাপাড়া হয়ে কন্টিপাড়া পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার কাচা রাস্তার বেহাল হয়ে পড়ায় জনদুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে।

সামান্য বৃষ্টিতেই যান চলাচলের অনুপযোগী বন্ধ হয়ে যায়। হাঁটাচলা করা খুব কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। কেউ অসুস্থ হলে নিয়ে হাসপাতালে নেওয়ার জন্য এম্ব্যুলেন্স নিয়ে যাওয়া তো দূরের কথা রিক্সা, ভ্যান চলাচলেরও কোন উপায় থাকে না। এতে করে ৫ গ্রামের মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে। বাধ্য হয়ে গত বুধবার , ১২ আগস্ট এলাকাবাসী নিজ উদ্যোগে রাস্তার বিভিন্ন জায়গায় ৫ ট্রলি ইটের রাবিশ দিয়েছে। এলাকার জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে বারবার অবগত করলেও কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। এতে করে ভোক্তভোগীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। জনদুর্ভোগ লাঘবে ভোক্তভোগীরা শেরপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হক চাঁনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

জানা য়ায়, দীর্ঘদিন যাবত ওই এলাকার সবগুলো রাস্তাই কাঁচা। এলাকায় তিনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কয়েকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এছাড়াও নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজ করতে প্রতিদিনই হিমশিম খাচ্ছে এলাকাবাসী। শ্রীবরদী উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর ২০১৯ সালে লিখিতভাবে রাস্তা পাকা করণের জন্য আবেদন করা হয়। কিন্তু অদ্যাবধি পর্যন্ত কোন কার্যকর প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেননি।

রানীশিমুল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মাসুদ রানা বলেন, রাস্তাটি দৈর্ঘ্য বেশি হওয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের তহবিল থেকে কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না। পাশাপাশি ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজ বন্ধ থাকায় মেরামত করা যাচ্ছে না। তবে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। উপজেলা প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, রাস্তাটি কাজের অনুমোদন পেলে দ্রুত সংস্কার করা হবে। সূত্র-সংবাদ

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.