সিলেটে মালামালসহ ৩ ডাকাত গ্রেফতার

সিলেট প্রতিনিধি ঃঃ

সিলেটে একটি প্রবাসী বাড়িতে ডাকাতির ২৪ ঘন্টার মধ্যে রহস্য উন্মোচন করে লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধারসহ ৩ ডাকাতকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে দেশিয় অস্ত্র উদ্ধারও করা হয়। গ্রেপ্তারের পর তারা আদালতে ডাকাতির ঘটনা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। গত ১ আগস্ট কানাইঘাট উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউনিয়নের পারকুল গ্রামের সৌদি প্রবাসী লুৎফুর রহমানের বাড়িতে দুর্ধর্ষ এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, ঘটনার দিন ওই প্রবাসীর মা তাহেরা বেগম (৫৫) পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে বাড়ির কলাপসিবল গেটে তালা দিয়ে ঘুমিয়া যান। ভোররাত ৩টার দিকে অজ্ঞাতনামা ৮ জনের ডাকাতদল দেশিয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে কৌশলে গেটের তালা ভেঙ্গে বাড়িতে প্রবেশ করে। এসময় ডাকাতদরে ঘরের মধ্যে আনাগোনার মব্দে বাড়ির লোকজনের ঘুম ভেঙ্গে যায়। বৈদ্যুতিক বাতি জ্বালানোর পর পরই চারজন ডাকাত তাহেরা বেগম, তার পুত্রবধূ ও নাতিদের চোখ মুখ বেঁধে ফেলে। কিন্তু পুত্রবধূ শুকুরা বেগম চিৎকার দিতে থাকলে তাদের একজন তার মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করে তাদের চুপ থাকতে বলে। তখন বাড়ির সদস্যরা বুঝতে পারেন ঘরের মধ্যে ডাকাত প্রবেশ করেছে। এসময় ডাকাতদল প্রাননাশের হুমকি দিয়ে ঘরের আলমিরা থেকে নগদ ৪০ হাজার টাকা, ৫ ভরি ১৫ আনা ওজনের (গলার হার, কানের দুল, চেইন, আংটি ও রিং) স্বর্ণালংকার, ১টি স্যামসাং ব্যবহৃত জে সেভেন-৩ মডেলের মোবাইল, ১টি নকিয়া মোবাইল ও ১টি কালো ট্যাবসহ প্রায় ৪ লাখ ১৮ হাজার ২০০ টাকার মালামাল লুট করে চলে যায়।

এ ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম দ্রুত ডাকাতদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন। পরে কানাইঘাট তানা পুলিশ একাধিক বিশেষ টিম গঠন করে সাাঁড়াশি অভিযান শুরু করে। থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শামসুদ্দোহা পিপিএম এর নেতৃত্বে এ টিমে ছিলেন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আনোয়ার জাহিদ, উপ-পরিদর্শক (এসআই) সনজিত কুমার রায়, উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবু কাউছার, উপ-পরিদর্শক (এসআই) স্বপন চন্দ্র সরকার, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মোজাম্মেল হক। তারা ওইদিন থেকে পরেরদিন পবিত্র ঈদুল আযহার দিনও ডাকাতদের শনাক্তে নানাস্থানে অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযান অব্যাহতের মধ্যে প্রবাসীর মা তাহেরা বেগম বাদি হয়ে কানাইঘাট থানায় একটি ডাকাতি মামলা (নং-০১, তারিখ-০২/০৮/২০২০ইং, ধারা-৩৯৫/৩৯৭) দায়ের করেন। একপর্যায়ে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঈদের দির রাত ৩পার দিকে ডাকাতি ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী কানাইঘাট উপজেলার পারকুল গ্রামের তেরা মিয়ার পুত্র আলী আহমদ (৩০) কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। উন্মোচিত হয় ডাকাতির রহস্য। এসময় তার কাছ থেকে ডাকাতির ৫ ভরি ওজনের বিভিন্ন ধরনের স্বর্ণালংকার (যার মূল্য আনুমানিক ২ লাখ ৮৭ হাজার টাকা), ১টি সিটি গোল্ডের চেইন (যার মূল্য আনুমানিক ১ হাজার টাকা), ২ টি মোবাইল সেট ও ১ টি ট্যাব (যার মূল্য আনুমানিক ৩১ হাজার ২০০ টাকা) উদ্ধার করা হয়। এরপর তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে একই গ্রামের মৃত শফিকুর রহমানের পুত্র আব্দুল লতিফ (৩৯) ও তালবাড়ি লক্ষীপুর পূর্ব গ্রামের মৃত মনির উদ্দিনের পুত্র আব্দুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এরমধ্যে আব্দুল লতিফের কাছ থেকে ডাকাতির দুই হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। ফলে লুন্ঠিত ৪ লাখ ১৮ হাজার টাকার মালামালের মধ্যে ৩ লাখ ২১ হাজার ২০০ টাকার মালামাল গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার করে পুলিশ এদিকে সোমবার বিকেলে গ্রেপ্তারকৃতদের আমলী-৫ আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাদের জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.